নগরীতে মাদক ব্যবসায়ীর হামলায় ছাত্রলীগ কর্মী আহতের ঘটনায় সন্ত্রাসী তারেক আটক

স্টাফ রিপোর্টার ॥ বরিশাল নগরীর চাঁদমারী মাদ্রাসা সড়কে মাদক ব্যবসায়ীর হামলায় এক ছাত্রলীগ কর্মী আহত হয়েছে। আহত ছাত্রলীগ কর্মীর নাম রমজান হোসেন রাব্বি (১৮)। গতকাল রাত সাড়ে ৮টায় এ ঘটনা ঘটে। এ ঘটনায় আহত ছাত্রলীগ কর্মী রাব্বি কোতয়ালী মডেল থানায় লিখিত অভিযোগ দিয়েছেন। কোতয়ালী মডেল থানায় অভিযোগ সূত্রে জানা গেছে, নগরীর ১১ নং ওয়ার্ডের চাঁদমারী মাদ্রাসা সড়কের মৃত মোশারেফ হাওলাদারের ছেলে ছাত্রদল ক্যাডার তারেক দীর্ঘদিন যাবৎ মাদক ব্যবসা করে আসছে। মাঝে মাঝে ছাত্রলীগ কর্মী রমজান হোসেন রাব্বির কাছ থেকে জোর করে টাকা নিয়ে মাদক সেবন করত মাদক ব্যবসায়ী তারেক। গতকাল রাতে আবারো রাব্বির পথ রোধ করে টাকা দাবি করে মাদক সেবী তারেক। এর প্রতিবাদ করেন ছাত্রলীগ কর্মী রাব্বি। প্রতিবাদ করায় তাকে বেদম মারধর করে। এরপর রক্তাক্ত অবস্থায় আহত রাব্বি কোতয়ালী মডেল থানায় লিখিত অভিযোগ জমা দেন। এরপর রাত ১০টার দিকে কোতয়ালী মডেল থানার এসআই সাইদুল চাঁদমারী মাদ্রাসা রোডের বাসা থেকে মাদক ব্যবসায়ী তারেক (২২) কে আটক করে। এরপর রাতে অন্যান্য মাদক ব্যবসায়ীরা মাদক ব্যবসায়ী ও সন্ত্রাসী তারেককে ছাড়াতে মোটা অংকের টাকা নিয়ে থানায় ঘুর ঘুর করেছে বলে জানা গেছে। কিন্তু থানা পুলিশ তাকে ছাড়েনি। আহত ছাত্রলীগ কর্মী রাব্বি মহানগর আওয়ামী লীগের যুবরতœ ও যুগ্ম সাধারন সম্পাদক সেরনিয়াবাত সাদিক আব্দুল্লাহর রাজনীতি করেন বেশ কয়েক বছর ধওে বলে জানা গেছে। এদিকে, আহত ছাত্রলীগ কর্মী রাব্বির বাসা ওই এলাকায় হওয়ায় রাতে তার বাসায় গিয়ে বাসা পুড়িয়ে দেবে বলে হুমকি দেয় মাদক ব্যবসায়ীর বড় ভাই আরেক মাদক ব্যবসায়ী আরিফ ও রেজা। এক সময়ের ছাত্রদল ক্যাডার আরিফ কিছুদিন পূর্বে ঝালকাঠির এক মেয়েকে জোর করে তুলে এনে বিয়ে করেছে বলে জানা গেছে। বর্তমানে সেই ঘরে একটি বা””া রয়েছে। কিন্তু এ ঘটনার পর এলাকা ছেড়ে ঢাকায় বসবাস করছে এ মাদক ব্যবসায়ী আরিফ। মাদক ব্যবসায়ী তারেক ও আরিফের মামা পল্টিবাজ আজিজুর রহমান শাহীনের ছত্র ছায়ায় এসব মাদক ব্যবসা করে আসছে দীর্ঘদিন। খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, সম্প্রতি তারেক চাঁদমারী মাদ্রাসা রোডের টাওয়ার ওয়ালা ব্লিডিং এর নিচ তলার একটি বাসা থেকে বিপুল পরিমান মদ, গাঁজা, ফেন্সিডিল, ইয়াবা ও নারীসহ তারেককে আটক করে কোতয়ালী মডেল থানার এসআই কুদ্দুসসহ ৪ দারোগা। পরে এক এমপির তদবিরে তাকে ছেড়ে দেয় পুলিশ। এ ঘটনার পর থেকে তারেক নাজিরাপোলের এক ছাত্রদল ক্যাডারের মাদক নগরীর ১১ নং ওয়ার্ডের কলোনীসহ সকলস্থানে ছড়িয়ে দেয়। আর এর সাথে ওই এলাকার বেশ কয়েকজন মাদক ব্যবসায়ী তারেকের মাদক ব্যবসা পরিচালনা করতে শুরু করে। এ ঘটনা পুলিশ প্রশাসন ও র‌্যাব-৮ বরিশালকে অবহিত করা হয়। কিন্তু থেমে থাকেনি তার মাদক ব্যবসা। বিভিন্ন পন্থায় মাদক ব্যবসা করে আসছে এ মাদক ব্যবসায়ী তারেক। এ ব্যাপারে মহানগর আওয়ামী লীগ নেতা জানান, মাদক ব্যবসায়ী কোন দলের নয়। কেউ এ ধরনের অপরাধ করলে তার বিরুদ্ধে ব্যাবস্থা নেয়া হবে। এ বিষয়ে বরিশাল মেট্রোপলিটন পুলিশের মূখপাত্র ও ডিবির এসি নাসির উদ্দিন মল্লিক জানান, তার বিরুদ্ধে আইনগত ব্যাবস্থা নেয়া হবে। তবে এ বিষয়ে অভিযুক্ত মাদক ব্যবসায়ী তারেক সাংবাদিকদের সাথে কথা বলতে রাজি হননি।

576 total views, 2 views today

Leave a Reply

সর্বশেষ সংবাদ