কলেজ ছাত্র খুন। অভিযুক্তদের বাড়িতে হামলা

গৌরনদী প্রতিনিধিঃ
যুবলীগ কর্মীদের হামলায় নিহত কলেজ ছাত্র ও ছাত্রলীগ কর্মী সাকির গোমস্তার স্বজনরা বৃহস্পতিবার দুপুরে হত্যাকান্ডের সাথে অভিযুক্তদের বাড়িতে ও একটি ব্যবসা প্রতিষ্ঠানে হামলা চালিয়ে ভাংচুর করেছে। এসময় এক এইচএসসি পরীক্ষার্থীনি ছাত্রীকে লাঞ্ছিত করে তার ব্যবহৃত স্বর্ণালংকার ছিনিয়ে নেয়ার অভিযোগ পাওয়া গেছে। ঘটনাটি ঘটেছে জেলার গৌরনদী পৌর এলাকার দক্ষিণ বিজয়পুর মহল্লায়।
এলাকাবাসী সূত্রে জানা গেছে, হত্যাকান্ডের ঘটনায় নিহতের বিক্ষুব্ধ স্বজনরা বৃহস্পতিবার সকালে শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের গেটে জড়ো হয়ে হত্যা মামলার আসামিদের এলাকার শিক্ষার্থীদের ওপর চড়াও হয়। এসময় তারা ওই এলাকার সবুজ গোমস্তার পুত্র নবম শ্রেনীর ছাত্র শাকিল গোমস্তাকে (১৪) মারধর করে। শিক্ষকরা এগিয়ে এসে তাকে উদ্ধার করেন। খবর পেয়ে পুলিশ দ্রুত ঘটনাস্থলে পৌঁছলে হামলকারীরা ছত্রভঙ্গ হয়ে যায়। এরপর গৌরনদী মডেল থানার এসআই আলমগীর হোসেনের নেতৃত্বে ক্যাম্পাসে পুলিশ মোতায়েন করা হয়। দুপুর ১২টার দিকে নিহতের স্বজনরা পুর্ণরায় জড়ো হয়ে হত্যা মামলার অপর আসামি সুমন হাওলাদারের চায়ের দোকান ভাংচুর করে তছনছ করে। এরপর তারা হত্যা মামলার প্রধান আসামি সোহেল গোমস্তা, ৩নং আসামি ইলিয়াস খান ওরফে লিয়াচ খানের বাড়িতে হামলা চালিয়ে ওই বাড়ির তিনটি ঘর ভাংচুর করে। এসময় হামলাকারীরা কেরোসিন ও পেট্রোল দিয়ে অগ্নিসংযোগ করে ঘর তিনটি পুড়িয়ে ফেলার চেষ্টা করে। খবর পেয়ে ক্যাম্পাসে অবস্থানরত পুলিশ দ্রুত ঘটনাস্থলে পৌঁছে হামলাকারীদের ধাওয়া করে ছত্রভঙ্গ করে দেয়।
হত্যা মামলার ৩নং আসামি ইলিয়াস খান ওরফে লিয়াচ খানের মা মুকুল নাহার অভিযোগ করেন, হামলাকারীরা তার বসতঘর ভাংচুর করে ঘরের মালামাল লুটপাট করে নিয়েছে। এসময় তার মেয়ে এইচএসসি পরীক্ষার্থীনী নুসরাত জাহান ডালিয়াকে লাঞ্ছিত করে তার গলায় থাকা স্বর্ণের চেইন ছিনিয়ে নেয়।
হামলা, ভাংচুর ও অগ্নিসংযোগের চেষ্টার পর বিক্ষুব্ধরা বরিশাল-ঢাকা মহাসড়কের আশোকাঠী বাসষ্ট্যান্ড এলাকায় জড়ো হয়ে মহাসড়ক অবরোধ করে কলেজ ছাত্র শাকিরের হত্যাকারীদের দ্রুত গ্রেফতার ও বিচারের দাবি জানিয়ে বিক্ষোভ প্রদর্শন করেন। খবর পেয়ে পুলিশ দ্রুত ঘটনাস্থলে পৌঁছে তাদের দাবি দ্রুত বাস্তবায়নের আশ্বাস দিলে বিক্ষুব্ধরা অবরোধ প্রত্যাহার করে নেয়। অবরোধকালে প্রায় ২০ মিনিট মহাসড়কে যানবাহন চলাচল বন্ধ থাকে। এ সময় মহাসড়কের উভয় দিকে কয়েকশত যানবাহন আটকা পরে।
গৌরনদী মডেল থানার ওসি মোঃ মনিরুল ইসলাম জানান, পুলিশ হত্যাকারীদেরকে গ্রেফতারে জোর প্রচেষ্টা অব্যাহত রেখেছে। অতি দ্রত সময়ের মধ্যে আসামিদের গ্রেফতার করা হবে।
শিক্ষার্থী ও এলাকাবাসী সূত্রে জানা গেছে, পালরদী মডেল স্কুল এ্যান্ড কলেজের অধ্যক্ষ তপন কুমার রায়কে অকথ্য ভাষায় গালিগালাজের প্রতিবাদ করায় মঙ্গলবার দুপুরে শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে একাদশ শ্রেনীর ছাত্র ও উপজেলার আশোকাঠী গ্রামের আইয়ুব আলী গোমস্তার পুত্র ছাত্রলীগ কর্মী সাকির গোমস্তা তাদের শিক্ষা প্রতিষ্ঠান সংলগ্ন দক্ষিণ বিজয়পুর গ্রামের ইউসুফ গোমস্তার পুত্র যুবলীগ কর্মী সোহেল গোমস্তা ও তার সহযোগীদের হামলার শিকার হয়। মুমূর্ষ অবস্থায় সাকিরকে প্রথমে গৌরনদী উপজেলা হাসপাতালে ও পরে শেবাচিম হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। সেখানে তার অবস্থার অবনতি হলে স্বজনরা ওইদিন বিকেলে সড়কপথে এ্যাম্বুলেন্সযোগে তাকে ঢাকায় নিয়ে রওয়ানা হন। মঙ্গলবার দিবাগত রাত পৌনে একটার দিকে সাকিরকে নিয়ে ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালের জরুরী বিভাগে পৌঁছলে সেখানকার কর্তব্যরত চিকিৎসকেরা সাকিরকে মৃত বলে ঘোষণা করেন। ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে ময়নাতদন্ত শেষে বুধবার রাত সাড়ে নয়টায় স্বজনরা তার লাশ নিয়ে এলাকায় পৌঁছে। ওইদিন রাত ১০টায় জানাজা শেষে সাকিরের লাশ আশোকাঠী গ্রামের পারিবারিক গোরস্থানে দাফন করা হয়।

175 total views, 2 views today

সর্বশেষ সংবাদ