মঙ্গলবার, ফেব্রুয়ারি ২০

জীবনযাপন ও বিনোদন

শার্শার কায়বা ইউনিয়ন আন্তঃজাতীয় সংঙ্গীত পরিবেশনা ও প্রাথমিক ক্রীড়া ও সাংস্কৃতিক প্রতিযোগিতা অনুষ্ঠিত।

শার্শার কায়বা ইউনিয়ন আন্তঃজাতীয় সংঙ্গীত পরিবেশনা ও প্রাথমিক ক্রীড়া ও সাংস্কৃতিক প্রতিযোগিতা অনুষ্ঠিত।

এবিএস রনি, শার্শা (যশোর) প্রতিনিধি।।  যশোরের শার্শা উপজেলার কায়বা ইউনিয়নে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান ভিত্তিক কায়বা ইউনিয়ন আন্ত : জাতীয় সংগীত পরিবেশনা ও প্রাথমিক ক্রীড়া ও সাংস্কৃতিক প্রতিযোগিতা - ২০১৮ শুরু হয়েছে। শনিবার সকাল নয়টায় দীঘা চালিতাবাড়ীয়া সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয় মাঠে অনু্ষ্ঠিত দুইদিন ব্যাপী এ অনুষ্টানের শুভ উদ্বোধন করেন ০৭ নং কায়বা ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সভাপতি চেয়ারম্যান  হাসান ফিরোজ আহমেদ টিংকু। স্বাগত বক্তব্য রাখেন দীঘা চালিতাবাড়ীয়া সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধানশিক্ষক আশরাফ হোসেন, এছাড়াও অন্যান্যের মধ্য উপস্থিত ছিলেন ইউপি সদস্য আলমগীর কবীর বদু, মনিরুজ্জামান মনু, আওয়ামীলীগ নেতা আবুল কালাম ইউনিয়ন ছাত্রলীগের সাধারণসম্পাদক মিলটন হাসান প্রমুখ। উক্ত প্রতিযোগিতা অনুষ্ঠানে ১৩ টি   প্রাথমিক, ৩ টি মাধ্যমিক ও ৩ টি মাদ্রাসার ছাত্রছাত্রী অংশগ্রহণ করে। অনুষ্ঠান শেষে বিজয়ীদের মাঝে পুরষ্কার বিতর
ক্যান্সারের টিকা আবিষ্কার

ক্যান্সারের টিকা আবিষ্কার

ক্যান্সারের মতো মারণ রোগ এখন প্রায় মহামারীর আকার ধারণ করেছে। এই রোগকে আয়ত্তে আনতে দিন-রাত এক করে ফেলেছেন বিশিষ্ট চিকিত্‍সক থেকে বিশেষজ্ঞরা। ক্যান্সার রোগকে নির্মূল করার পরীক্ষা-নিরীক্ষায় নিজেকে অর্পণ করে দিয়েছেন বহু বিজ্ঞানী। তবুও এই রোগের নির্দিষ্ট ওষুধ আনতে সক্ষম হননি কেউই। এবার সেই দুশ্চিন্তা থেকে মুক্তি দিল কিউবা! তবে ক্যান্সার রোগে আক্রান্তদের জন্য সত্যিই সুখবর। এখনও পর্যন্ত এই মারণ রোগের চিকিত্‍সা বলতে অত্যন্ত কষ্টকর কেমোথেরাপি ও রেডিয়েশন পদ্ধতির মতো কয়েকটি পদ্ধতি রয়েছে। এবার হয়তো মুক্তি মিলবে এই সুদূরপ্রসারী চিকিত্‍সাব্যাবস্থা থেকে। মারণ রোগকে নির্মূল করতে কিউবার একটি ছোট দলের বিজ্ঞানীরা আবিষ্কার করে ফেলেছেন একটি বিস্ময়কর টিকা। তাঁদের দাবি, এই টিকার সাহায্যেই ক্যান্সার রোগ নির্মূল করা সম্ভব। সেটা হাতেনাতে প্রমাণ পেতে ইতোমধ্যেই ৪ হাজারেরও বেশি আক্রান্তদের উপর পরীক্ষা করা হয়েছে
দারুণ স্বাদের ফুলকপির ভর্তা তৈরির সহজ রেসিপি , জেনে নিন

দারুণ স্বাদের ফুলকপির ভর্তা তৈরির সহজ রেসিপি , জেনে নিন

ফুলকপি ভর্তা খুবই সুস্বাদু ও জনপ্রিয় একটি খাবার । ছোট-বড় সবাই পছন্দ করবেন এই খাবারটি । ঘরে বসে খুব সহজেই এবং অল্প সময়ে তৈরি করতে পারবেন । বাজারে নতুন ফুলকপি উঠেছে । এইসময় ফুলকপির নানা ধরনের আইটেম তো করাই হয় । কিন্তু ফুলকপির ভর্তা করে দেখেছেন কখনো ? না করে থাকলে আজই রান্না করুন এই সুস্বাদু খাবারটি । উপকরণ : ফুলকপি ৫০০ গ্রাম সরিষার তেল ২ টেবিল চামচ পেঁয়াজ কুচি ২ টেবিল চামচ কাঁচা মরিচ কুচি ১ টেবিল চামচ আদা কুচি কোয়াটার চা চামচ হলুদ গুঁড়া কোয়াটার চা চামচ গোল মরিচ গুঁড়া কোয়াটার চা চামচ আম/জলপাই আচার ১ টেবিল চামচ ধনেপাতা কুচি ১ টেবিল চামচ লবণ স্বাদমতো যেভাবে তৈরি করতে হবে : ফুলকপি ছোট টুকরো করে লবণ দিয়ে মেখে ফুটন্ত গরম পানিতে আধা সেদ্ধ করে নিতে হবে । আধা সেদ্ধ করা ফুলকপিতে হলুদ গুঁড়া ও গোল মরিচ মেখে সরিষার তেলে হালকা বাদামি রঙ করে ভেজে নিতে হবে । একই তেলে পেঁয়াজ কুচি , আদা
সম্পর্কের একবছরের মধ্যেই যৌনতায় উত্সাহ হারায় মহিলারা

সম্পর্কের একবছরের মধ্যেই যৌনতায় উত্সাহ হারায় মহিলারা

ওয়েব ডেস্ক : সৃষ্টির আদি রহস্য লুকিয়ে যৌনতায়। যৌনতা এক অকৃত্রিম বাসনা। নারী-পুরুষ নির্বিশেষে জীবকুলের প্রত্যেকেই এই যৌন তাড়নায় তাড়িত হয়ে থাকে। মানুষও এই যৌন চাহিদার ব্যতিক্রম নয়। নারী-পুরুষের যৌনতা নিয়ে সম্প্রতি সাউদাম্পটন ইউনিভার্সিটি একটি গবেষণা চালায়। গবেষণা রিপোর্টটি সমীক্ষা আকারে প্রকাশিত হয় ব্রিটিশ মেডিক্যাল জার্নাল ওপেনে। ৪,৮৩৯ জন পুরুষ ও ৬,৬৬৯ জন নারীকে নিয়ে চালানো হয় এই সমীক্ষা। যাদের প্রত্যেকেরই বয়স ১৬ থেকে ৭৪ বছরের মধ্যে।  সমীক্ষায় উঠে আসে এক চমকপ্রদ তথ্য। সমীক্ষায় বলা হচ্ছে, পুরুষ অপেক্ষা নারীরা-ই তাড়াতাড়ি যৌনতায় উত্সাহ হারিয়ে ফেলেন। দীর্ঘস্থায়ী সম্পর্কের ক্ষেত্রেও বিষয়টা এরকমই। সম্পর্কের একবছরের মধ্যেই মহিলারা যৌনতায় উত্সাহ হারিয়ে ফেলেন বলে, উল্লেখ করা হয়েছে সমীক্ষায়। আরও বলা হয়েছে, সন্তান জন্মের পর উদাসীনতা আরও বেশি মাত্রায় আসে।
আমার সানগ্লাসগুলোর দাম অনেকের পুরো সিনেমার পারিশ্রমিক

আমার সানগ্লাসগুলোর দাম অনেকের পুরো সিনেমার পারিশ্রমিক

কাজী মারুফ। একটা বাক্সে আমার সানগ্লাসগুলো দাম যেটা, এটা অনেকের পুরো সিনেমার পারিশ্রমিক। কখনো এরকম ছবি দিইনি। আজ নিজের কিছু কথা বলছি অনেক কষ্টে। জী, আমি ম্যানচেস্টার থেকে পড়াশোনাও করিনি। তবে অল্প করলেও ঠিক মতো করেছি। আমার চলচ্চিত্রের চরিত্রে যে পোশাকে মারুফকে দেখা যায় ওই পোশাক মারুফকে দেওয়া হয় প্রযোজকদের তরফ থেকে। আর চরিত্র অনুযায়ী আমাকে কাপড় পরতে দেওয়া হয়। আমি মনে করি, আমি ২০১৬ পর্যন্ত যা বলেছি সব গণমানুষের কথা বলেছি এবং সাধারণ জনগণের প্রতিনিধি হয়ে আমি চলচ্চিত্রের পর্দায় কিছু বলার চেষ্টা করেছি, প্রতিবাদ করেছি। আর প্রতিবাদে সব সময়ই কঠোর হই। আর অন্যায় দেখলে প্রতিবাদ করবই আমি। নোট: আমি পুরুষ মানুষ, আমার কিন্তু কোনো (আপন জুয়েলার্স) এর মতো বন্ধু নেই। আমার ব্যক্তিজীবন আর পর্দার মারুফকে অনেকেই এক মনে করে ফেলেন। ভুল করেন আমি শো অফ করি না...। ২০১১ সালে একবার আল্লাহর ঘর ধরার সৌভাগ্য হয়েছ

সর্বশেষ সংবাদ